বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুর, বিচারের দাবিতে বশেমুরবিপ্রবি’তে মানববন্ধন


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ৭, ২০২০, ৮:৩৯ অপরাহ্ন / ১২৫
বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুর, বিচারের দাবিতে বশেমুরবিপ্রবি’তে মানববন্ধন

ক্যাম্পাস ডেস্কঃ
কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙচুর, বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্য নির্মাণ নিয়ে অপব্যাখ্যা, ধর্মীয় গোঁড়ামির প্রতিবাদে সারাদেশের মত গোপালগঞ্জেরর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেমুরবিপ্রবি) প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (০৭ ডিসেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে উপাচার্য ড. একিউএম মাহবুব এর সভাপতিত্বে বিশাল আকারের প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের উপস্থিতিতে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধনে অংশ নেয় প্রক্টর ড রাজিউর রহমান, শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. হাসিবুর রহমান, আইন অনুষদের ডিন আব্দুল কুদ্দুস মিয়া, ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ শাহজাহান, জাকিয়া সুলতানা মুক্তা সহ অন্যান্য শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারীবৃন্দ।

এসময় তারা বলেন, ১৯৭১ সালে যারা এদেশকে চায়নি তারাই বঙ্গবন্ধুর বিরোধী। ৭১ সালের অপশক্তিরা আবার জেগে উঠেছে। তাদেরকে রুখতে হবে। এছাড়াও তারা বলেন, বিশ্বের অনেক মুসলিম দেশে ভাস্কর্য আছে। ভাস্কর্য আর মূর্তি এক না। আরব বিশ্বেও ভাস্কর্য আছে। তাদের সমস্যা না হলে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে সমস্যা কিসের? তারা দোষীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড.একিউএম মাহবুব বলেন, ভাস্কর্য এবং মূর্তি এক না। দেশে জিয়াউর রহমান, সুকান্ত ভট্টাচার্য, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, জয়নুল আবেদীন সহ অনেকের ভাস্কর্য আছে। সেগুলোতে কোনো সমস্যা নাই। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে তাদের সমস্যা। এর কারণ হলো, বঙ্গবন্ধু জীবিত থাকা আর লোকালয়ে ভাস্কর্য থাকা একই বিষয়। ভাস্কর্য থাকলে নতুন প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুর চেতনা ধারণ করে অপশক্তিকে ত্যাগ করবে। তাই তারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য রাখতে চায় না।
তিনি আরও বলেন, এদেশ যতদিন থাকবে, বঙ্গবন্ধু ততদিন থাকবে। কোনো অপশক্তি বঙ্গবন্ধু ও তার আদর্শকে উচ্ছেদ করতে পারবে না।