বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপে বশেমুরবিপ্রবি


প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২২, ৭:০৭ অপরাহ্ন / ২৬৮
বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপে বশেমুরবিপ্রবি

বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপে দাবা খেলায় ৩৩ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে পুরুষ এককে অষ্টম এবং নারী এককে একাদশ অবস্থানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের রাজিত হাসান ইয়ামিন এবং মার্কেটিং বিভাগের লামিয়া ইসলাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের হয়ে লড়ছেন।তারা উভয় বিশ্ববিদ্যালয়টির দাবা ক্লাবের সদস্য। ৪ দিনের ৮ রাউন্ডের এই খেলাটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল সুইচলিগ পদ্ধতিতে।রাজিত হাসান ইয়ামিন ৫ পয়েন্ট এবং লামিয়া ইসলাম ৩.৫ পয়েন্ট নিয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপে কৃতিত্ব অর্জন করেছেন।

খেলাধুলার মাধ্যমে তরুণদের মাঝে কর্তব্যপরায়ণতা, ভ্রাতৃত্ববোধ, অধ্যবসায় ও নেতৃত্বদানের গুণাবলি বৃদ্ধির লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপ কাজ করে আসছে।বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, চেতনা ও ক্রীড়াপ্রেমী মানসিকতা তারুণ্যের মাঝে ছড়িয়ে দিতে তাদের এই উদ্যোগ।

মার্কেটিং বিভাগের লামিয়া ইসলাম বলেন, আমি এবার অংশগ্রহণ করতে পেরে সত্যি অনেকবেশি আনন্দিত।কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি আমরা এখানে আমাদের প্রতিপক্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলোয়াড়দের সাথে পরিচয়ের এক পর্যায়ে অনেকটা বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখে পড়েছি।আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচয় দেখলাম অনেকেই জানেনা।এটা আমার কাছে যেটা মনে হলো অংশগ্রহণমূলক কোনো প্রতিযোগিতায় আমরা আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়কে কখনো তুলে ধরতে পারিনি।বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এ ধরনের অংশগ্রহণে আমাদের অনেকবেশি সাপোর্টের প্রয়োজন ছিলো অথচ সে অনুযায়ী আমরা সাপোর্ট তাদের থেকে পায়নি।আমাদের যতোটুকু মানসিক ও ট্রেনিং সাপোর্ট দিয়ে আসছে তার সবটুকু বশেমুরবিপ্রবি দাবা ক্লাব দিয়েছে।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের রাজিত ইয়ামিন হাসান বলেন, বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপে বিশ্ববিদ্যালয়কে প্রতিনিধিত্ব করতে পেরে আনন্দিত। আশা করি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবা অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

বশেমুরবিপ্রবির দাবা ক্লাবের সভাপতি মোজাহিদ উল হক জানান,দাবা ক্লাব প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়েছি। বৈশ্বিক করোনা মহামারিতে আমরা অনলাইনে টুর্নামেন্টসহ বিভিন্ন প্রোগ্রামের মাধ্যমে আয়োজন করে থাকলেও আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় সশরীরে এবার প্রথম।দাবা ক্লাবের এই অর্জন,সামনে এগিয়ে যেতে অনুপ্রাণিত করবে।