বশেমুরবিপ্রবিতে আইসিটি ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থীদের প্রেস ব্রিফিং


প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ৩, ২০২১, ৭:৩৯ অপরাহ্ন / ১২১
বশেমুরবিপ্রবিতে আইসিটি ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থীদের প্রেস ব্রিফিং

ক্যাম্পাস ডেস্কঃ
গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আওতাধীন শেখ হাসিনা ইন্সটিটিউট অফ আইসিটি এর ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের সিএসই এবং ইইই বিভাগের শিক্ষার্থীরা তাদের অবস্থান কর্মসূচি স্থগিত করেছেন এবং সমস্যা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য সকল ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জনের ঘোষনা দিয়েছেন।

আজ (বুধবার) দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখে অনুষ্ঠিত এক প্রেস ব্রিফিংএ এ ঘোষনা দেওয়া হয়।

এসময় শিক্ষার্থীরা বলেন, মাননীয় ভিসি স্যারের আশ্বাসে এবং প্রশাসনের প্রতি সন্মান জানিয়ে আজ থেকে অবস্থান কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে। কিন্তু সমস্যা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য সকল ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন করা হল।

শিক্ষার্থীরা আরও বলেন, ২০১৮-১৯শিক্ষাবর্ষে এ ইনস্টিটিউটে মোট তিনটি বিভাগ সিএসই , ইইই এবং ইটিই থাকলেও তৎকালীন ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন বি. কে. বালা এবং ইটিই বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান ইন্সটিটিউটের ইটিই বিভাগকে অনুষদের ইটিই বিভাগের সাথে একীভূত করেন। বর্তমানে সিএসই ও ইইই বিভাগের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছেন। সমস্যা সমাধানের জন্য বিগত ২ বছরে প্রশাসন বরাবর বেশ কয়েকবার স্মারকলিপি, আবেদনপত্র জমা দেওয়া হলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ সমস্যার কোনো সুষ্ঠু সমাধান দেননি। বরং ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি দেওয়া সত্ত্বেও ইনস্টিটিউট এর পরবর্তী ব্যাচ ভর্তি বন্ধ করে দেওয়া হয়। যার ফলে ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ সংকটাপন্ন।

শিক্ষার্থীরা জানান, ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ৭ দফা দাবিতে পরবর্তী ব্যাচ ভর্তিসহ সকল সমস্যা সমাধান করে ইনস্টিটিউট চলমান রাখার জন্য আন্দোলন করলে তৎকালীন প্রশাসন আশ্বাস দেয় স্থায়ী ভিসি আসলে ইনস্টিটিউটের সিএসই এবং ইইই বিভাগকে ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের স্ব-স্ব বিভাগে একীভূত করা হবে। আশ্বাসের ভিত্তিতে তখন আন্দোলন বন্ধ করা হলেও স্থায়ী ভিসি আসার পরও এ সমস্যার কোনো সমাধান হয়নি।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০২০ সালের ২৮ ডিসেম্বর থেকে ইন্সটিটিউটটের সার্বিক সমস্যা সমাধানের জন্য অবস্থান কর্মসূচির মাধ্যমে আন্দোলন নামেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বলেন, ইন্সটিটিউটের দুই বিভাগের পরবর্তী ব্যাচের ভর্তি চলমান রাখবেন। তাছাড়া সার্বিক সমস্যা সমাধানের জন্য একাডেমিক কাউন্সিলের জন্য অপেক্ষা করতে বলেন।

উল্লেখ্য যে, ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ থেকে মাদারিপুরের শিবচরে অস্থায়ী ভাবে তৈরি হয় শেখ হাসিনা ইনিস্টিটিউট অফ আইসিটি। সেখানে সিএসই, ইইই এবং ইটিই বিভাগে প্রায় ১০০ জন শিক্ষার্থীকে ভর্তি করানো হয়। এর মধ্যে ইটিইি বিভাগকে অনুষদের ইটিইি বিভাগের সাথে একীভূত করা হলেও সিএসই ও ইইই বিভাগের শিক্ষার্থীদের একীভূত করা হয়নি। এমতাবস্থায় ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত উক্ত দুই বিভাগের শিক্ষার্থীরা।